ব্যায়াম-১ঃ হাঁটা

নিচের ধাপ  অনুযায়ী করতে হবে

ধাপ-১ঃ  শিশুরা খাদে হাত রাখার পরিমান দূরত্ব রেখে একজন আরেকজনের পিছন থেকে গোল হয়ে দাঁড়াবে।

১ নং ব্যায়াম
১ নং ব্যায়াম

ধাপ-২ঃ এক বলার পর মেরুদন্ড সোজা রেখে আস্তে আস্তে হাঁটা শুরু করবে।

১ নং ব্যায়াম
১ নং ব্যায়াম

ধাপ–৩ঃ  দুই বলার পর শিশুর আগের চেয়ে একটু জুড়ে হাঁটবে।

১ নং ব্যায়াম
১ নং ব্যায়াম

 ধাপ-৪ঃ তিন বলার পর শিশুরা পুনরায় আস্তে আস্তে হাঁটা শুরু করবে।

  ধাপ-৫ঃ চার বলার পর শিশুরা থেমে যাবে।

আবার পুনরায় এ ব্যায়ামটি করবে-

ধাপ-১ঃ  শিশুরা খাদে হাত রাখার পরিমান দূরত্ব রেখে একজন আরেকজনের পিছন থেকে গোল হয়ে দাঁড়াবে

১ নং ব্যায়াম
১ নং ব্যায়াম

ধাপ-২ঃ এক বলার পর মেরুদন্ড সোজা রেখে আস্তে আস্তে হাঁটা শুরু করবে

১ নং ব্যায়াম
১ নং ব্যায়াম

ধাপ–৩ঃ  দুই বলার পর শিশুর আগের চেয়ে একটু জুড়ে হাঁটবে

১ নং ব্যায়াম
১ নং ব্যায়াম

 ধাপ-৪ঃ তিন বলার পর শিশুরা পুনরায় আস্তে আস্তে হাঁটা শুরু করবে

  ধাপ-৫ঃ চার বলার পর শিশুরা থেমে যাবে।

আবার এ ব্যায়ামটি পুনরায় করবে-

ধাপ-১ঃ  শিশুরা খাদে হাত রাখার পরিমান দূরত্ব রেখে একজন আরেকজনের পিছন থেকে গোল হয়ে দাঁড়াবে

১ নং ব্যায়াম
১ নং ব্যায়াম

ধাপ-২ঃ এক বলার পর মেরুদন্ড সোজা রেখে আস্তে আস্তে হাঁটা শুরু করবে

১ নং ব্যায়াম
১ নং ব্যায়াম

ধাপ–৩ঃ  দুই বলার পর শিশুর আগের চেয়ে একটু জুড়ে হাঁটবে

১ নং ব্যায়াম
১ নং ব্যায়াম

 ধাপ-৪ঃ তিন বলার পর শিশুরা পুনরায় আস্তে আস্তে হাঁটা শুরু করবে

  ধাপ-৫ঃ চার বলার পর শিশুরা থেমে যাবে।

 

 

পরবর্তীতে শিশুরা প্রত্যেকটি ব্যায়ামের পর এ ব্যায়ামটি করবে।

 এ বিশ্বের সর্বত্রই নিয়মের রাজত্ব। ঊর্ধ্বে নীলাকাশ, নিম্নে সাগর পৃথিবী। সর্বত্র  নিয়মের  অবাধ গতি। আকাশে সূর্য, চন্দ্র, গ্রহ ,নক্ষত্র আমাদের এই পৃথিবী সবকিছু একটি নিয়ম শৃঙ্খলা মেনে আপন আপন পথে আবর্তন করছে। কোথাও এর সামান্যতম বিচ্যুতি করতে পারে না। সূর্যকে কেন্দ্র করে যুগ যুগান্তর ধরে সুনির্দিষ্ট পথে ছুটে চলছে সৌন্দর্যের প্রকাশ ।

 মানুষের জীবনে শৃঙ্খলাবোধ জেগেছিল আদিকাল থেকেই। পৃথিবীর কোন বড় কাজেই শৃঙ্খলা বা নিয়ম বন্ধন ছাড়া সফল হয়নি। রাষ্ট্র পরিচালনা, নগর নির্মাণ, বিজ্ঞান সাধনা, জ্ঞান ও ধর্ম সাধনা এক কথায় নিয়ম মানুবর্তিতা বা  শৃঙ্খলা ছাড়া কোন কিছুই হতে পারে না। মানুষ তাই নিজেই নিজের নিয়ম সৃষ্টি করেছে। ব্যক্তি সমাজ তথা রাষ্ট্রীয় জীবনেও শৃঙ্খলার প্রয়োজনীয়তা অপরিসীম। সভ্যতার মানুষের সৃষ্টি। সভ্যতা আগমনের পক্ষে শৃঙ্খলা বোধ বা নির্মানুবর্তিতা সৃষ্টি করে, সভ্যতাকে গড়ে তুলেছে কিন্তু প্রাকৃতিক নিয়মকে মানুষ কখনোই লঙ্ঘন করতে পারেনি। সে আপন নিয়ম ও শৃঙ্খলা বজায় রেখেই চলছে।

Views: 11

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *