২ নং ব্যায়াম দুই হাতের ব্যায়াম ফুলকলি

ব্যায়াম দুই হাতের ব্যায়াম ফুলকলি

নিচের ধাপ অনুযায়ী ব্যায়ামটি করতে হবে-

 ধাপ১ঃ  এক  শিশুরা দুই বা তিন সারিতে সোজা হয়ে দাঁড়াবে।

২ নং ব্যায়াম
২ নং ব্যায়াম

 ধাপ ২ঃ এক বললে শিশুরা দুই হাত মাথার উপর আড়ালে ভাবে তুলবে এবং ব্যায়ামের জন্য প্রস্তুতি নিবে।

২ নং ব্যায়াম
২ নং ব্যায়াম

ধাপ ৩  কলি বললে শিশুরা হাতের আঙ্গুলগুলো একসাথে ফুলের কলির মত করবে।

২ নং ব্যায়াম
২ নং ব্যায়াম

 ধাপ৪ঃ   ফুল বললে আঙুলগুলো খুলে ফুলের মতো করবে এভাবে তিনবার করলি এবং তিনবার ফুলের মত করবে।

২ নং ব্যায়াম
২ নং ব্যায়াম

 ধাপ ৫ দুই বললে শিশুরা হাত নামিয়ে ফেলবে।

২য় বার আবার শুরু করবে-

ধাপ ১ঃ  শিশুরা দুই বা তিন সারিতে সোজা হয়ে দাঁড়াবে।

২ নং ব্যায়াম
২ নং ব্যায়াম

 ধা ২পঃ  এক বললে শিশুরা দুই হাত মাথার উপর আড়ালে ভাবে তুলবে এবং ব্যায়ামের জন্য প্রস্তুতি নিবে।

২ নং ব্যায়াম
২ নং ব্যায়াম

ধাপ ৩ঃ  কলি বললে শিশুরা হাতের আঙ্গুলগুলো একসাথে ফুলের কলির মত করবে।

২ নং ব্যায়াম
২ নং ব্যায়াম

 ধাপ৪ঃ ফুল বললে আঙুলগুলো খুলে ফুলের মতো করবে এভাবে তিনবার করলি এবং তিনবার ফুলের মত করবে।

২ নং ব্যায়াম
২ নং ব্যায়াম

 ধাপ ৫ঃ দুই বললে শিশুরা হাত নামিয়ে ফেলবে।

৩য় বার আবার করবে-

ধাপ১ঃ এক  শিশুরা দুই বা তিন সারিতে সোজা হয়ে দাঁড়াবে।

২ নং ব্যায়াম
২ নং ব্যায়াম

 ধাপ২ঃ দুই  এক বললে শিশুরা দুই হাত মাথার উপর আড়ালে ভাবে তুলবে এবং ব্যায়ামের জন্য প্রস্তুতি নিবে।

২ নং ব্যায়াম
২ নং ব্যায়াম

ধাপ ৩ঃ  কলি বললে শিশুরা হাতের আঙ্গুলগুলো একসাথে ফুলের কলির মত করবে।

২ নং ব্যায়াম
২ নং ব্যায়াম

 ধাপ৪ঃ  ফুল বললে আঙুলগুলো খুলে ফুলের মতো করবে এভাবে তিনবার করলি এবং তিনবার ফুলের মত করবে।

২ নং ব্যায়াম
২ নং ব্যায়াম

 ধাপ ৫ দুই বললে শিশুরা হাত নামিয়ে ফেলবে।

 এভাবে শিশুরা  ব্যায়ামটি তিনবার করবে এরপর এক নম্বর  ব্যায়ামটি করবে।

নিয়ম শৃঙ্খলা মেনে চলায় বিশ্বের বিধান কি ব্যক্তি জীবনে, কি সমাজ জীবনে, কি জাতীয় জীবনে, কোথাও এর ব্যতিক্রম সম্ভব নয়। ব্যতিক্রম ঘটলে বিপর্যয় অবসম্ভাবী। শুধু প্রকৃতিতেই সত্য নহে, মানব জীবনেও সত্য। এজন্যই ব্যক্তির কল্যাণে এবং জাতির কল্যাণে দেশের প্রত্যেকেরই নিয়ম অনুবর্তী হওয়া উচিত। নিয়ম শৃঙ্খলা ভঙ্গের ফল যে কিরূপ বিষময় হতে পারে, তার অজস্র উদাহরণ ইতিহাসের পাতা হতে উদ্ধার করা যায়। আমাদের প্রাত্যহিক জীবনে ও নিয়ম শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিশাপ প্রতিনিয়তই প্রত্যক্ষ করে। আমাদের আধুনিক জীবনের অনেক সমস্যাই এর নিয়ম নীতির প্রতি অবহেলার ফল।

অনেকের মধ্যে নিয়মানুবর্তিতা ব্যক্তির স্বাধীনতাকে খর্ব করে তাই তারা কোনরূপ নিয়ম শৃঙ্খলার বা ধনকে পছন্দ করে নাই এর প্রেক্ষিতে বলা যায় বিশৃংখল জীবন মানুষের সর্বনাশ ডেকে আর এ মহা সত্য উপলব্ধি করেই তো মানুষ আইন ও নিয়ম কানুন তৈরি করে সমাজ ও মানুষের শ্রেষ্ঠ জীবন বিকাশের পথ প্রশস্ত করেছে নিয়মানুবর্তিতা জীবনের উন্নতির জন্য একান্ত প্রয়োজন ব্যক্তির ব্যক্তিত্ব ও প্রতিভার বিকাশের চেয়ে বড় সহায়ক আর নেই জীবনের আচরণে নিয়মানুবর্তিতার অভাবে অনেক প্রতিভাশালী মানুষের জীবন ও ব্যর্থতায় পর্যবষিত হয়।

Views: 11

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *